সরকারের দিন ঘনিয়ে এসেছে: তাবিথ

199

সরকারের দিন ঘনিয়ে এসেছে, আমাদের দিন শুরু হয়েছে। সরকারকে চোখে আঙুল দিয়ে দেখাতে হবে, ওদের দিন ঘনিয়ে এসেছে। আমি আগেও বলেছি, বাংলাদেশের সবচেয়ে ভালো দিন আমাদের সামনে। পিছিয়ে যেতে পারব না, আমরা আর পেছনে যাব না।

বুধবার বিকালে রাজধানীর খিলগাঁও তালতলা মার্কেটের সামনে এক সমাবেশে এসব কথা বলেছেন বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য তাবিথ আউয়াল। তিনি ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের সর্বশেষ নির্বাচনে ধানের শীষ প্রতীকে মেয়র প্রার্থী ছিলেন।

ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির উদ্যোগে ‘নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন, খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি, ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে সাজানো মামলা প্রত্যাহার, ডিজিটাল কালো আইন বাতিলের দাবি এবং নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে’ এই সমাবেশ হয়।

তালতলা সিটি করপোরেশন সুপার মার্কেটের সামনে সড়কে দুইটি ট্রাকের ওপর অস্থায়ী মঞ্চ তৈরি করে সমাবেশ করে বিএনপি।

সভাপতির বক্তব্যে তাবিথ আউয়াল বলেন, নিরাপত্তা আমরা অবশ্যই চাই। আমরা কি নিরাপত্তা পাচ্ছি? আবরার নামের একটি ছেলেকে বাসচাপা দিয়ে হত্যা করা হয়। তখন আমরা আন্দোলন করে পেয়েছি একটি নিরাপদ সড়ক ও ওভারপাস ব্রিজ। যদি আমাদের ভোটের অধিকার ফিরে পেতে হয়, দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে আনতে হয়, তাহলে আমাদের সংগঠিত আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে।

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘কালা আইন’ যেটার নাম হচ্ছে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মাধ্যমে আমাদের হাজার হাজার নেতাকর্মীরা জেলে আছেন। সাধারণ নেতাকর্মীরাও মামলার শিকার হয়েছেন। আমাদের প্রাণপ্রিয় সাংবাদিক ভাই-বোনেরা নির্যাতিত হচ্ছেন, লাঞ্ছিত হচ্ছেন, এই আইনের মামলায় হয়রানির শিকার হচ্ছেন। আমাদের মুক্তচিন্তার লেখক মুশতাক আহমেদ কারাগারে মৃত্যুবরণ করেছেন। আজ পর্যন্ত বলা হয়নি তার অপরাধটা কী ছিল? বলা হয়েছে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে ওনাকে আটক করা হয়েছে।

নিরাপদ সড়ক আন্দোলনের কথা উল্লেখ করে তাবিথ আউয়াল বলেন, আমার ছোট ভাইয়েরা, অয়ন ও অনিক যারা নিরাপদ সড়ক আন্দোলন করেছিল। তাদেরকে প্রযুক্তি আইনে বন্দি করা হয়েছে। আমরা আমাদের দাবি জোরদার করব। আমাদের প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন করার জন্য ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিল করতে হবে। বাংলাদেশ থেকে ছুঁড়ে ফেলতে হবে।

বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির এই সদস্য বলেন, যখন আমরা আমাদের অধিকার আদায়ের জন্য লড়াই করি না, তখন বুঝতে হবে আমরা আমাদের বড় শত্রু। আমাদের অধিকার কে ছিনিয়ে নিয়ে যাবে? আমরা যদি ঐক্যবদ্ধভাবে রুখে না দাঁড়াই আমাদের অধিকার ছিনিয়ে নেওয়া চলমান থাকবে। আমাদের অধিকার দেবে না। আমাদের ভোট কেউ নিশ্চিত করবে না। যতক্ষণ না আমরা ভোট নিশ্চিত করব, জনগণের সরকার নিশ্চিত করব।

নেতাকর্মীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, আমরা সব গুম-হত্যা, মামলার প্রতিবাদ জানাই। দেশনেত্রী খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি চাই। আমরা দেখতে চাই আমাদের ভবিষ্যৎ নেতা তারেক রহমান দেশে ফিরে আসবেন।